সিটি নির্বাচনে আইভির পাশে নেই উত্তর মেরু!

নিজস্ব প্রতিবেদক, প্রেসবাংলা২৪.কম: নারায়ণগঞ্জ সিটি নির্বাচনে আওয়ামীলীগ মনোনীত প্রার্থী ডা. সেলিনা হায়াত আইভির নির্বাচনী প্রচারণাতে নেই উত্তর মেরু খ্যাত আওয়ামী পন্থীরা। এ নিয়ে আওয়ামীলীগের তৃণমূলের নেতা কর্মীদের মধ্যে চলছে সমালোচনার ঝড়। দল আইভিকে নৌকা প্রতিক দিলেও উত্তর মেরুখ্যাত আওয়ামী পন্থী কাউকে দেখা যায়নি প্রচারণায়।  দুই মেরুর দ্বন্দ থাকায় কেউ আইভির সাথে নির্বাচনী প্রচারণায় নেই নামছেন না। এতে করে আওয়ামী লীগের মধ্যে পুরনো বিভক্তি লক্ষ্য করা যাচ্ছে।

অপরদিকে দুই মেরুর এই বিভক্তিকে পুজি করে এড. তৈমুর আলম খন্দকার সিটি নির্বাচনে জয়ের স্বপ্ন দেখছেন। স্বপ্ন ভঙ্গের অতীত ভুলে এবার জয় পেতে মরিয়া তৈমুর। যদিও শোনা যাচ্ছে বিএনপির অনেকেই দলমত নির্বিশেষে আইভিকে মেয়র পদে দেখতে চান। এবং জনপ্রিয়তার কারনে শেষ পর্যন্ত জয়ের মালা আইভি গলায় এমটাই মনে করেন সাধারণ ভোটাররা।

এ পর্যন্ত আইভির পাশে উত্তর মেরুর কাউকে মাঠে নামতে দেখা যায়নি। এর আগে আওয়ামী লীগের মনোনয়নের জন্য কেন্দ্রের কাছে ভিপি বাদল , এড. খোকন সাহা, চন্দন শীল এর নাম প্রস্তাব করলেও তাদের কেউ দলীয় মনোনয়ন পায়নি। ড. আইভি মনোনয়ন পেলে ও তাদের কাউকে দেখা যায়নি আইভির নির্বাচনী মাঠে এমনটাই অভিযোগ তৃণমূলের কর্মীদের।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে প্রেসবাংলাকে জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এড. আবু হাসনাত শহীদ মোঃ বাদল বলেন, সিটি নির্বাচন নিয়ে প্রধানমন্ত্রীর চুড়ান্ত সিদ্ধান্তই আমাদের  এবং সবাইকে নৌকা মার্কায় ভোট দেওয়ার আহবান জানিয়েছি। ইতিমধ্যে আমাদের জেলা আওয়ামীলীগ প্রার্থীকে নিয়ে মিটিং করেছে। আগামীকাল ১১টায় কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দ আমাদের জেলা এবং মহানগর নেতৃবৃন্দদের ডেকেছেন। প্রধানমন্ত্রীর সিদ্ধান্তই মূখ্য, আমার কাছে আইভি কোন মূখ্য বিষয় না, নৌকাই মূখ্য। নৌকার জন্য কাজ করে যাব।

মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সসম্পাদক এড. খোকন সাহা প্রেসবাংলাকে বলেন, আমরা নেত্রীর সিদ্ধান্তের বাহিরে না আর আমিতো অসুস্থ রোগী তাই বাহিরে যেতে পারিনা। মেয়র বিপুল ভোটে পাশ করবে। ওনি বিএনপির ভোট পাবে জামাতের ভোট পাবে এমনকি হেফাজতেরও ভোট পাবে। মেয়রের জন্য আমাদের চিন্তা নাই। আমাদের দলের ভিতর মান অভিমান থাকতে পারে কিন্তু আমরা নেত্রীর সিদ্ধান্তের বাহিরে না। মেয়র আমার বিরুদ্ধে মামলা দিছে আমাদের মহানগর আওয়ামী লীগের আরো ছয় জনের বিরুদ্ধে মামলা দিছে এ সমস্ত উত্তেজনা আছে তারপরও নেত্রীর সিদ্ধান্তের বাহিরে না। আমরা সবাই নামব।

উল্লেখ্য, ২০১১ সালের ৫ মে নারায়ণগঞ্জ পৌরসভা, সিদ্ধিরগঞ্জ পৌরসভা ও কদম রসুল পৌরসভা বিলুপ্ত করে নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশন গঠন করা হয়। ওই বছরের ৩০ অক্টোবর নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের প্রথম নির্বাচনে আওয়ামী লীগের সমর্থিত প্রার্থী শামীম ওসমানকে পরাজিত করে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে জয়ী হন সেলিনা হায়াৎ আইভী। ২০১৬ সালের ২২ ডিসেম্বর নির্বাচনে তিনি আওয়ামী লীগের মনোনয়ন পান। সেই নির্বাচনে বিএনপি দলীয় প্রার্থী সাখাওয়াত হোসেন খানকে পরাজিত করে দ্বিতীয় মেয়াদে মেয়র নির্বাচিত হন।

এবার ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিনের (ইভিএম) মাধ্যমে আগামী ১৬ জানুয়ারি ভোট গ্রহণ করা হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com