`শ্রমিকদের ৩০-৪০ বছরের পাওনা থেকে বঞ্চিত করার জন্য এই কৌশল'

`শ্রমিকদের ৩০-৪০ বছরের পাওনা থেকে বঞ্চিত করার জন্য এই কৌশল’

নগর প্রতিনিধি, প্রেসবাংলা২৪.কম: নারায়ণগঞ্জে কুমুদিনি ওয়েলফেয়ার ট্রাস্ট অব বেঙ্গল লিমিটেড এর জুট প্রেসে কর্মরত শ্রমিকদের সাথে মিটিং করেছেন নারায়ণগঞ্জ-৫ আসনের সাংসদ সদস্য একেএম সেলিম ওসমান। মিটিং শেষে গণমাধ্যম কর্মীরা বাংলাদেশ টেক্সটাইল গার্মেন্টস্ শ্রমিক ফেডারেশনের সভাপতি এডভোকেট মাহবুবুর রহমান ইসমাইলের কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন কুমুদিনি একটা ভালো মানের প্রতিষ্ঠান হওয়ার পরও হাসপাতাল করার আড়ালে শ্রমিকদের যে ৩০-৪০ বছরের পাওনা সেখান থেকে বঞ্চিত করার জন্য তারা আজকে এই কৌশল নিয়েছে। বক্তব্যের এক পর্যায়ে সেলিম ওসমান তেড়ে আসেন আইনজীবী ইসমাইলের দিকে।
মঙ্গলবার (৮ জুন) জেলা প্রশাসকের কক্ষে দুই ঘন্টা ব্যাপী এ মিটিং অনুষ্ঠিত হয়।মিটিং এ উপস্থিত ছিলেন, জেলা পুলিশ সুপার জায়েদুল আলম, নারায়ণগঞ্জ চেম্বার অফ কমার্সের সভাপতি খালেদ হায়দার খান কাজল, নারায়ণগঞ্জ মহানগর যুবলীগের সভাপতি শাহাদাৎ হোসেন ভূইয়া সাঁজনু, নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের কাউন্সিলর শওকত হাসেম শকু।
মিটিং শেষে গণমাধ্যম কর্মীরা বাংলাদেশ টেক্সটাইল গার্মেন্টস্ শ্রমিক ফেডারেশনের সভাপতি এডভোকেট মাহবুবুর রহমান ইসমাইলের কাছে জানতে চাইলে সেলিম ওসমান বলেন, ওইখানে আইন প্রশাসন, জেলা প্রশাসন, এমপি ওই জায়গায় সিদ্ধান্ত নিয়েছে আমরা আইনে যাচ্ছি না। সেখানে সমঝোতা হয়ে গেছে। আপনি আমার প্রশাসনকে অপমান করছেন এখন। আমার কথার উপর রায় দিয়েছে প্রশাসন। তুমাকে আমি দায়িত্ব দিয়েছি তারা যদি শ্রমিক হয় পেপার সাবমিট করে আমাকে দেখাও।
মিটিং এ কুমুদীনি শ্রমিকদের কি নির্দেশনা দেওয়া হলো এ বিষয়ে বাংলাদেশ টেক্সটাইল গার্মেন্টস্ শ্রমিক ফেডারেশনের সভাপতি এডভোকেট মাহবুবুর রহমানের সাথে কথা হলে তিনি জানান, নারায়ণগঞ্জ-৫ আসনের এমপি যে নিদের্শনা দিয়েছে সেই নিদের্শনাটা সম্পুর্ণ মালিক পক্ষে। শ্রমিক পক্ষের নিদের্শনা উনি দেয় নাই। শ্রমিকদের যে প্রাপ্য পাওনার বিষয়টা বলা হয়েছিলো আমি আইনগত ভাবে তা তুলে ধরেছিলাম, এমপি সাহেব আমাকে সেটা পড়তে দেয় নাই। এমপি নিদের্শনা দিয়েছেন ২৫ তারিখ থেকে উচ্ছেদ করতে হবে। কুমুদিনি একটা ভালো মানের প্রতিষ্ঠান হওয়ার পরও হাসপাতাল করার আড়ালে শ্রমিকদের যে ৩০-৪০ বছরের পাওনা সেখান থেকে বঞ্চিত করার জন্য তারা আজকে এই কৌশল নিয়েছে।
তিনি আরও বলেন, ট্রাস্টের মালিকানাধীন অত্র শিল্প কারখানার কর্মকর্তাগণ ২০২১ সালের ১৫ মার্চ আমাদের বাসস্থানে দরজার সামনে এসে “লাল রংয়ের দাগের ক্রস” চিহ্ন দিয়ে বলে ৭ দিনের মধ্য বাসস্থান ছেড়ে দিতে নয়তো তাদেরকে উচ্ছেদ করা হবে এবং বুলডোজার দিয়ে বাসস্থান ভেঙ্গে ফেলবে।বাসা না ছাড়লে শ্রমিকদের বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা গ্রহণ করার হুমকি দেয়। শ্রমিক আইনের ধারা ৩২ এর উপধারা ধারা (২) এ উল্লেখ আছে শ্রমিকের পাওনা পরিশোধ না করে কোন শ্রমিককে বাসস্থান থেকে উচ্ছেদ করা যায় না।এছাড়া সংবাদ সম্মেলনে শ্রমিকরা তাদের ন্যায্য প্রাপ্য পাওনা পরিশোধ পূর্বক করোনা মহামারীর উন্নতি না পর্যন্ত শ্রমিক পরিবারকে বাসস্থান হইতে উচ্ছেদ না করা এবং কুমুদিনী ওয়েল ফেয়ার ট্রাস্ট বিশাল ভু-সম্পত্তির অধিকারী বা মালিক, মানবিক কারনে শ্রমিকগণকে পূর্নবাসন না করে বাসস্থান থেকে উচ্ছেদ না করার জন্য প্রধানমন্ত্রীর উপর হস্তক্ষেপ কামনা করেন।
উল্লেখ্য, গত ফেব্রুয়ারি মাসে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে কুমুদিনি ওয়েলফেয়ার ট্রাষ্টের প্রস্তাবিত ক্যান্সার হাসপাতালের ভিত্তিপ্রস্তর উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।
0 0 vote
Article Rating
Subscribe
Notify of
guest
0 Comments
Inline Feedbacks
View all comments
0
Would love your thoughts, please comment.x
()
x